12/11/2017

সরকারী এবং বেসরকারী বৃত্তি সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

সরকারী এবং বেসরকারী বৃত্তি সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য


আমাদের দেশে মৌলিক অধিকারগুলোর মধ্যে শিক্ষা হচ্ছে অন্যতম। যদিও শিক্ষা ও একটি মৌলিক অধিকার তবুও কিছু কিছু সময় আর্থিক সমস্যার কারণে লেখাপড়া চালিয়ে দেওয়া সম্ভব হয় না। তাতেকি যদি আপনার মেধা থেকে তাহলে আপনার সেই মেধা মূল্যায়নের জন্য রয়েছে সরকারি বেসরকারি কিছু সংস্থা যারা আপনাকে বিভিন্ন ধরনের বৃত্তি প্রদান করে থাকবে। এ সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশ সরকারের বৃত্তি ছাড়াও মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের লেখাপড়ার জন্য বিভিন্ন ব্যাংক এবং দাতব্য সংস্থা বৃত্তি প্রদান করে থাকে।

আবার অনেকে উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে থাকেন কিন্তু আর্থিক দুরবস্থার কারণে সেটি করা সম্ভব হয় না। এই সমস্যা সমাধানের জন্য সরকার ও বিভিন্ন সংস্থার ভূমিকা পালন করে আসছে। এসব বৃত্তির ক্ষেত্রে পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যান্য খরচও দেওয়া হয় এবং সেক্ষেত্রে শর্ত একটাই পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হবে এবং ন্যূনতম একটা ফলাফল অর্জন করতে হবে যদি ফলাফল আশানুরূপ না হয় তাহলে মাঝপথে বৃত্তি বন্ধ করে দেয়া হয়।

বৃত্তি প্রদানকারী সংস্থা গুলোর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে কমনওয়েলথ বৃত্তি এবং জাপান সরকারের মনবুকাগাকাশো । পৃথিবীর প্রায় সব উন্নত দেশের সরকার এবং বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয় বিভিন্ন ধরনের বৃত্তি প্রদান করে থাকে প্রয়োজন শুধু নিজেকে প্রস্তুত করা এবং সময়মতো আবেদন করা।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের বৃত্তি 


সাধারণত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা এ ব্যক্তির সুবিধা পেয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আবেদনকারীকে অনু বিশ্ববিদ্যালয়ের এমফিল বা পিএইচডি'র প্রোগ্রামের তালিকাভুক্ত হয়ে আবেদন করতে হয় এবং এটি একটি পূর্ণকালীন গবেষণা বৃত্তি। এ সময় আবেদনকারীকে অবশ্যই শিক্ষাকালীন ছুটি নিতে হবে। এই বৃত্তির অর্থের পরিমাণ হচ্ছে যদি আপনি phd fellowship এর জন্য আবেদন করেন তাহলে মাসে 5000 টাকায় এবং এমফিল ফেলোশীপের জন্য মাসে 4000 টাকা । কোন কারন ছাড়াই কেউ পড়াশোনা বন্ধ করে দিলে সে ক্ষেত্রে বৃত্তির টাকা ফেরত দিতে হবে।
সাধারনত দল সর্বোচ্চ দুই বছরের জন্য স্কলারশিপ দেয়া হয় এবং যদি সন্তোষজনক অগ্রগতি হয় তবে বছরান্তে নবায়ন করার সুবিধা রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন খরচ বহনের জন্য প্রথম এবং দ্বিতীয় বছরে দেড় হাজার টাকা অতিরিক্ত দেয়া হয় এছাড়াও সুপারভাইজার এর সুপারিশ ক্রমে থিসিস পেপার প্রস্তুত করার জন্য আরও আট হাজার টাকা দেবার বিধান আছে।

এবার আমরা মনবুকাগাকাশো বৃত্তি সম্পর্কে জানব


এই বৃত্তি চালু করা হয় 1954 সালে এবং এটি জাপান সরকার চালু করেন। এখন পর্যন্ত 160 টির ও বেশী দেশের প্রায় 65 হাজার শিক্ষার্থী এই বৃত্তির আওতায় পড়াশোনা করেছে। এই ভিত্তিতে মনোনীত হতে হলে বেশ কয়েক জাতের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়।

গবেষণা বৃত্তি নেয়ার ক্ষেত্রে degree সমতুল্য 16 বছরের শিক্ষাজীবন সম্পন্ন করতে হবে আর বয়স 35 এর মধ্যে হতে হবে এবং বিশ্ববিদ্যালয় মাস্টার্স বা পিএইচডি প্রোগ্রামে ভর্তির অনুমতি পেলেই কেবল এ বৃত্তির জন্য আবেদন করা যাবে।

শিক্ষক প্রশিক্ষণ বৃত্তির জন্য আবেদন করার ক্ষেত্রে বয়স হতে হবে 35 আর কলেজে graduate কিংবা শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজ এর graduate হতে হবে।

শিক্ষার্থীদের জন্য undergraduate পর্যায়বৃত্তিক: এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে হলে সরকারের থেকে 22 বছরের মধ্যে হতে হবে এবং স্কুলে 12 বছরের শিক্ষাজীবন শেষ করলেই কেবল ইমিটেশন আবেদন করা যাবে। জাপানি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে চার বছর মেয়াদী undergraduate course code শুরুর আগে এক বছর মেয়াদি একটি প্রস্তুতিমূলক কোর্স করতে হয় এই বৃত্তি পাবার জন্য।

japanese studies: japanese studies বিক্রির জন্য আবেদনকারীর বয়স 18 থেকে 30 মধ্যে হতে হবে সেইসাথে জাপানে আসার সময় এবং কোর্স শেষে যাওয়ার সময় আবেদনকারীকে জাপানি ভাষা এবং সংস্কৃতির সহ জাপানের বাইরের কোন স্কুলে অধ্যয়নরত থাকতে হবে। যদি আবেদনকারী জাপানি ভাষা এবং সংস্কৃতির ছাড়া অন্য বিষয়ে পড়াশোনা করতে চায় সেক্ষেত্রে জেএসএসও japan student services organization বরাবর আবেদন করতে হবে।

college of technology student: এক্ষেত্রে বয়স 17 17 থেকে 22 এবং অন্তত 11 বছরের শিক্ষাজীবন সম্পন্ন করতে হবে।

special training college students: এই ক্ষেত্রেও বয়স হতে হবে 17 থেকে বাইশের মধ্যে এবং জাপানের হাই স্কুল গুলোর সমমানের 12 বছরের শিক্ষাজীবন সম্পন্ন করতে হবে।

young leaders program: তিন থেকে পাঁচ বছর প্রশাসনের কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে এবং কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়োজন গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেছে এমন ব্যক্তির বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারে।

কমনওয়েলথ স্কলারশিপ


কমনওয়েলথ দেশভুক্ত বিভিন্ন দেশ ছাড়াও অন্যান্য দেশগুলোতে স্কলারশীপ প্রদান করা হয়। আগে মাস্টার্স এবং dr পর্যায়কে গুরুত্ব দেয়া হলেও বর্তমানে দূরশিক্ষণ আন্ডারগ্রাজুয়েট পর্যায়ে সংক্ষিপ্ত প্রফেশনাল কোর্সের জন্য এ বৃত্তি প্রদান করা হয়ে থাকে। dj এজন্য আপনাকে আবেদন করতে হবে  http://www.csfp-online.org/index.html

কমনওয়েলথ scholarship সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানা থাকলে নিচে প্রদানকৃত ঠিকানায় এবং ফোন নম্বর শেষে website যোগাযোগ করতে পারেন।
সহকারী সচিব শিক্ষা মন্ত্রণালয়

ভবন নম্বর 6, 18 এবং 19 তলা বাংলাদেশ সচিবালয় ঢাকা
ফোন: +880 232356/404162
ফ্যাক্স: +880 27167577
ই-মেইল: sas_stp@moedu.gov.bd
ওয়েবসাইট: http://www.moedu.gov.bd/

দেশের বেসরকারি ব্যাংকগুলোর বৃত্তি


বাংলাদেশ বাংলাদেশ এশিয়া ডাচ-বাংলা ব্যাংক সহ বিভিন্ন ব্যাংকের বিশেষ শিক্ষা বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে। সাধারণত এসব বিধি বাংলাদেশের অনগ্রসর জেলার শিক্ষার্থীদের দেয়া হয়। এইচএসসি পাশের পর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লেখাপড়া করছে এমন শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান করা হয়। মাসিক টাকা ছাড়াও অনেক সময় এককালীন টাকা দেয়া হয় এবং পুরো উচ্চশিক্ষা-কাজ সময়টাতেই এর বৃত্তি প্রদান করা হয়।

সরকারি বৃত্তি


বাংলাদেশ সরকার শিক্ষা পর্যায়ে অনেক আগের থেকেই বৃত্তির ব্যবস্থা করেছে। সাধারণত প্রাথমিক, জুনিয়র, ssc, hsc পর্যায়ে বৃত্তি প্রদান করা হয়ে থাকে। navratri জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে 550 টাকা এবং সাধারন বৃত্তির ক্ষেত্রে 250 টাকা। এছাড়া মেধাবী থেকে একটা নাম্বার সঠিক এবং সাধারন বৃত্তিতে 1500 টাকা দেওয়া হয় তবে নিয়মিত শিক্ষার্থী হওয়া এবং পড়াশোনার অগ্রগতি এই ভিত্তির পূর্ব শর্ত।

No comments

Post a Comment